,



দাবী-দাওয়া উত্থাপন না করেই সরাসরি খেলা বন্ধ! খেলোয়ারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাপনের

ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তাদের ব্যক্তিগত অনেক কথাই বলে বসলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আজ দুপুরে দীর্ঘ সংবাদ সম্মেলনে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত সমস্যাও তাকে সমাধান করতে হয়েছে। এরপরেও তাদের নানারকম সুযোগ সুবিধা দিচ্ছেন বলেও দাবি করেন পাপন।

তিনি বলেন, ‘কার ভাইকে এসপি-ডিসি মেরেছে, রাতে সেই এসপিকে ফোন দিয়ে ব্যবস্থা নিতে হয়েছে। এক খেলোয়াড়কে পুলিশ ধরে নিয়ে যাচ্ছে। বলছে মেরে ফেলবে! বিদেশ থেকে এসব থামাতে হয়। কার মামার জমি দখল করে নিয়ে গেছে উত্তরায়, সেটি উদ্ধার করতে হয়েছে। মুশফিকের বাবা, মিরাজের খালা কোন গ্রামে কাকে মেরেছে, সেটার সমাধান আমাকে করতে হয় বিদেশ থেকে। এসময় এগুলো (ধর্মঘট) আমার কাছে ধাক্কা।’

ইমরুল কায়েসের বাচ্চার অসুখের সময় তিনি কীভাবে সাহায্য করেছেন তা উল্লেখ করে পাপন বলেন, ‘ইমরুলের বাচ্চা খুব অসুস্থ। অ্যাপোলো কিছু করতে পারছে না। সিঙ্গাপুরে নিতেই হবে। আমাকে বলল, আমার ভিসা নেই। কালকের মধ্যে ভিসা করে দিতে হবে। বললাম, টিকিট করে ফেল। এক দিনের মধ্যে সবার ভিসা করলাম। রাতে একটা অনুষ্ঠানের মধ্যে আবার ফোন করল। বলল, বাচ্চার এত খারাপ অবস্থা, ভিআইপি ব্যবহার করতে পারলে ভালো হয়। আমি ভিআইপি ব্যবস্থা করলাম।’

ভালো খেললেই বিসিবি সভাপতি কোটি টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দেন। সেই বিষয়টি উল্লেখ করে নাজমুল হাসান বলেন, ‘২৪ কোটি টাকা ওদের বোনাস দিয়েছি। এই ১৫ খেলোয়াড়কে। শুধুই পারফরম্যান্সের জন্য। এটা কেউ দেয় নাকি? কী পরিমাণ সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো হচ্ছে, এই টাকার জন্য খেলা বন্ধ করে দেবে, বিশ্বাস হয় না। বেতন আড়াই লাখ টাকা ছিলো । তারা বলেলো বাড়াতে হবে, কেউ কেউ বললো বেশি করে বাড়ান। কেউ বললো পঞ্চাশ হাজার টাকা বাড়িয়ে দিন। আমি সেখানে বসেই ৪ লাখ করে দিলাম। এতো কিছুর পরেও সমস্যা কোথায় বুঝতে পারছি না।

এদের সঙ্গে আমাদের নিয়মিত যোগাযোগ, কাউকে বলল না। সাকিবের সঙ্গে সবশেষ যখন দেখা, তখনো সে বলেছে, আমি বিশ্বকাপে ভালো খেললাম আমার টাকা দিয়ে দেন! বললাম, ঠিক আছে আপার সঙ্গে কথা বলে অনুষ্ঠান করে দিই। তুমি ভালো খেলেছ।’ সবই যখন ঠিক আছে তাহলে তারা খেলা বন্ধ করলো কেনো? এটাই বুঝতে পারছি না। সবার-ই দাবী দাওয়া থাকে এবং এটাই স্বাভাবিক কিন্তু দাবী দাওয়া আমাদের কাছে উত্থাপন না করেই সরাসরি কেনো খেলা বন্ধ করলো ? এটা কি ষড়যন্ত্র না? একটি চক্র বাংলাদেশ ক্রিকেটকে ধ্বংস করতে চাচ্ছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্ট করতে চাচ্ছে এবং এ ঘটনার মধ্য দিয়ে কিছুটা সফলও হয়েছে। অভিযোগের সুরে এমন আরো অনেক কথাই বললেন পাপন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ