,



আ.লীগের সাবেক প্রতি-মন্ত্রী অ্যাড. রহমত আলী আর নেই

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, সুপ্রিমকোর্টের সিনিয়র আইনজীবি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ অ্যাডভোকেট মো. রহমত আলী আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকাল ৭টার দিকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে তিনি মারা যান।

অ্যাডভোকেট রহমত আলীর ব্যক্তিগত সহকারী এসএম জাহাঙ্গীর আলম সিরাজী জানান, দীর্ঘদিন তিনি ডায়াবেটিস ও কিডনি রোগে ভুগছিলেন। রোববার বাদ জহুর পশ্চিম ধানমন্ডি জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে, বিকেল চারটায় জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায়, বাদ মাগরিব ঢাকার এ্যালিফেন্ট রোডের বায়তুল মামুর জামে মসজিদ ও আগামীকাল সুপ্রীম কোর্ট প্রাঙ্গণে জানাযার জন্য সময় নির্ধারণ করা হয়েছে, এছাড়াও মঙ্গলবার মরহুমের জন্মস্থান গাজীপুরের শ্রীপুরে জানাযা শেষে দাফনের কথা রয়েছে তার।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন। মরহুমের বড় ছেলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ড. জাহিদ হাসান তাপস । ছোট ছেলে অ্যাডভোকেট মো. জামিল হাসান দুর্র্জয় গাজীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক। তার একমাত্র মেয়ে রুমানা আলী টুসী একাদশ জাতীয় সংসদে ১৪ নং সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য।

১৯৪৫ সালের ১৬ই সেপ্টেম্বর গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় পৌর শহরের ১নং ওয়ার্ডে তিনি জন্ম গ্রহণ করেন।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে তিনি তৎকালীন ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, শ্রীপুর থেকে নির্বাচিত হয়ে জাতীয় সংসদে টানা পাঁচবার সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন, এছাড়াও তিনি কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সভাপতি ও সম্পাদক, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাবেক কৃষি বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। দেশের দারিদ্রবিমোচনে বর্তমান সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প একটি বাড়ী একটি খামারের মূল উদ্যোক্তা তিনি। বিগত ৭ম সংসদে সীমিত সময়ের জন্য তিনি স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। বিভিন্ন সময় তিনি জাতীয় সংসদে স্পীকারের দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৬২ সালে হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বাতিলের আন্দোলন, ৬৬ এর ৬-দফা, ৬৯ এর গণ আন্দোলন, ৭০ এর নির্বাচন, ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ, এরশাদ বিরোধী আন্দোলনসহ বাংলাদেশের প্রায় সবগুলো আন্দোলনের অগ্রণী ভূমিকায় ছিলেন এড. রহমত আলী। রাজনীতি করতে গিয়ে একাধিকবার কারাবরণও করেন তিনি। ২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা আহত হন তিনি। ক্লিন ইমেজের এমন একজন বরেণ্য রাজনৈতিকের মৃত্যুতে গাজীপুর -৩ আসনের সর্বত্রই শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ