,



জাগ্রত হোক ৫২ এর বাংলা

বাঙ্গালির গর্ভ বাঙ্গালির অহংকার তার মাতৃভাষা বাংলা । আজ থেকে ৬৮ বছর পূর্বে তারা ১৯৫২ সালে এই ভাষার জন্য যুদ্ধ করে ছিলো আর বিজয় হয়েছিল। পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র জাতি যারা ভাষার জন্য যুদ্ধ করেছিল। তাই সেই যুদ্ধের প্রতিদান এখন সারা বিশ্ব দিচ্ছে। সারা বিশ্বজুড়ে পালন করা হয় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারী। আর সেই ফেব্রুয়ারী মাস যা সারা বিশ্ব পালন করলো এক সাথে একদিনে নিজ নিজ ভাষার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এবং বাংলা ভাষাকে শ্রদ্ধা জানাতে, শ্রদ্ধা করলো বীর সন্তান ভাষা শহীদের । তাই তো শ্রদ্ধা রইল সেই বীর সন্তান দের প্রতি যারা বাংলাকে মাতৃভাষা করতে নিজের জীবন দিয়ে শহীদ হয়েছিল এবং যারা পুঙ্গত্ব বরণ করেন সেই ভাষা সৈনিকদের প্রতি। সেই সাথে শ্রদ্ধা রইল দেশের জন্য জীবন দানকারি সকল শহীদদের প্রতি। কষ্টের সঙ্গে বলতে হয় সুদীর্ঘ ৬৮ বছর পার করে এসেছি আমরা তবু এখনো পর্যন্ত সেই মূলমন্ত্র টা বাস্তবে রুপ দিতে পারিনি। যেখানে বলছিল সকল স্থানে বাংলা ভাষা চালো করতে হবে । একই কথা উল্লেখ আছে আমাদের সংবিধানে স্পষ্টভাবে সর্বক্ষেত্রে বাংলা চালু। তবে আজ যেন তা শুধু খাতা আর কলমে আটকে আছে বাস্তবচিত্র তার ভিন্ন কথা বলে অফিস আদালত পাড়া সব জায়গায় ইংরেজি,উচ্চ শিক্ষার কথা আর কি বলবো সেখানে যেন বাংলাটা নিষিদ্ধ এমন অবস্থা। বলতে কষ্ট হলেও সত্যি বাংলা যেন আজ গরিব এর ভাষায় রুপ নিয়েছে। সমাজের বর্তমান চিত্র অনেকটা এমন উচ্চবিত্ত পরিবার হলে যেন ইংরেজি মিডিয়ায় পড়া আবশ্যক হয়ে গেছে,মধ্যবিত্ত হলে বাংলাভাষাতে পড়তে হবে আর যদি নিম্নবিত্ত হয় তবে শুধু ধর্মীয় শিক্ষাই তার জন্য।

এখন কথা হলো এর জন্য কি তবে যুদ্ধ করেছিল সালাম, রফিক,সফিক জব্বার এর মতো মহৎ প্রাণ মানুষ । তাঁরা কি এমনটায় চেয়েছিলো বাঙ্গালির জাতীর কাছে? প্রশ্ন থেকে গেল জাতির কাছে, কর্তাব্যক্তি গুলোর কাছে। এমন অবস্থায় শিক্ষাবিদরা মনে করেন এতে যেমন ভাষার অবমাননা হচ্ছে তেমনি বৈষম্য তৈরি করছে সমাজের মানুষের মাঝে। তারা আরো বলেন এতে যেন সরকার সহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অবহেলা ষ্পষ্ট ফুটে ওঠে। আর এই কারণে অজানা থেকে যাচ্ছে বাংলা ভাষা ও তার ঐতিহ্য। এর কোনটায় আমাদের কাম্য হতে পারে না।

এখন দেশের শিক্ষাবীদদের পাশাপাশি দেশের সাধারণ মানুষ চায় বাংলা ভাষার সুষ্ঠু ব্যবহার, সকল ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা চালু করা। অফিস, আদালত, উচ্চতর শিক্ষা ব্যবসা ক্ষেত্রে বাংলা চালু করা। ব্যানার, পোস্টার, সাইনবোর্ড সহ সব জায়গাতে বাংলা ভাষা প্রয়োগ করা। এখনি এটা না করা হলে হয়তো এক সময় হারিয়ে যাবে বাংলা ভাষা ও তার ঐতিহ্য। তাই এই ভাষার মাস থেকে শুরু হোক আমদের সুষ্ঠু বাংলাভষার ব্যবহার পূর্ণ হক সেই বীর সন্তানদের মনোবাসনা। জাগ্রত হোক ৫২ এর বাংলা, বাঙ্গালি ফিরে পাক প্রণের বাংলা ভাষা।

লেখকঃ  ইমরান হাসান, শ্রীপুর ( গাজীপুর) ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ