,



মাদারীপুরে আদালতের ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে ভবন নির্মাণ করার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মাদারীপুরের কালকিনিতে আদালতের ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে আবুদর রহমান হাওলাদার নামে এক মুক্তিযোদ্ধার বাড়ির রাস্তা দখল করে পাকা ভবন নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্থানীয় বেশ কয়েকজন প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। মুক্তিযোদ্ধার বাড়ির রাস্তা বন্ধ করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

মামলা ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রমজানপুর এলাকার উত্তর রমজানপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান হাওলাদারের ও আবদুল হাই হাওলাদার গংদের ১৪৬ নম্বর উত্তর চর রমজানপুর মৌজার বিআরএস ১৯৪২ নম্বর খতিয়ানে ৭৮০৪ ও ৭৮০৫ নম্বর দাগে প্রায় ১৪৯ শতাংশ পৈত্রিক জমি রয়েছে। এবং একই দাগে মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমানের নিজের প্রায় ৩০ শতাংশ জমি আছে। ওই জমির উপর দিয়ে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ির ও জনসাধারণের চলাচলের রাস্তা নির্মাণ করার জন্য উভয় পক্ষ একটি অঙ্গীকারনামা তৈরি করেন। পরে মুক্তিযোদ্ধা ওই জমির উপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করে দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগ দখল করে আসছে। হঠাৎ করে ওই মুক্তিযোদ্ধা আবুদর রহমান হাওলাদারের বাড়ির রাস্তা বন্ধ করে জোরপূর্বক পাকা ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করেন একই বাড়ির আবদুল হাই হাওলাদর। ভবন করতে একাধিকবার বাধা প্রদান করা হলেও প্রভাবশালীরা কোনো কর্ণপাত না করে ভবনের কাজ চালিয়ে যান। কোনো উপায়ন্তর না পেয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান হাওলাদার বাদী হয়ে মাদারীপুর কোর্টে একটি ১৪৪ ধারা মামলা দায়ের করেন। পরে আদালত কাউকে ওই জমি দখলে না যাওয়ার নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। কিন্তু আদালতের এ নিষেধাজ্ঞাকে অমান্য করে রাতের আঁধারে আবদুল হাই হাওলাদার, মো. ইসলাত হোসেন ও ইমারাত হোসেন বাবু লোকজন নিয়ে ওই জমিতে পাকা ভবনের কাজ চালিয়ে আসছেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান হাওলাদারের পরিবারকে বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার জন্য একের পর এক হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে আবদুল হাই হাওলাদর ও তার লোকজন। এতে করে চরম আতংকে রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধার পরিবার।

ভুক্তভোগী মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রহমান হাওলাদার বলেন, আমার বাড়ির রাস্তা দখল করে জোরপূর্বক পাকা ভবন নির্মাণ করছে আবদুল হাই হাওলাদর। এতে বাধা দিলে আমাকে তারা বিভিন্ন প্রকারের হুমকি দিয়ে আসছে। আমি কোনো বিচার পাচ্ছি না। অভিযুক্ত আবদুল হাই হাওলাদারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন স্থানীয় বলেন, মুক্তিযোদ্ধার বাড়ির রাস্তা বন্ধ করাটা খুবই অন্যায় কাজ। তাদের এ কাজ বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার এএসআই লব কুমার সাহা বলেন, আমি উভয় পক্ষকে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার নোাটিশ জারি করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ